ইমানদীপ্ত আহবান

৳ 214

রাসুল সা.-এর আগমনের আগে এ ধরা অন্ধকারে ডুবে ছিল। এ কথা সবারই জানা। তখন আরবে বিরাজ করছিল ‘জোর যার মল্লুক তার’ অবস্থা। পুরুষরা যা বলত এবং করত, তা-ই ছিল ন্যায়। নারীদের তখন কোনো অধিকার ছিল না। রাসুল সা.-এর আবির্ভাবের পর পৃথিবীটা যেন নতুন প্রাণ পেল—দীর্ঘ তৃষ্ণার পর লোকেরা তাদের পিপাসা মেটাল।
لَمَّا أطَلَّ مُحَمَّدٌ زَكَتِ الرُّبَا *** واخْضَرَّ فِي الْبُسْتَانِ كُلُّ هَشِيْمِ
‘মুহাম্মাদের আবির্ভাবে স্ফীত হলো যত সতেজ টিলা। বাগানের সব শুকনো ঘাস নিমিষেই হলো সবুজ শ্যামল।’
.
রাসুল সা.-এর আবির্ভাব ছিল তাগুত ও তাগুতের দোসরদের ধ্বংসের ঘোষণা, নতুন ভোরের সূচনা, নবজাগরণের আরম্ভ, পৃথিবীব্যাপী ন্যায় প্রতিষ্ঠার ভূমিকা। যেটা কেবল এক আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই সম্ভব। যেটা সম্ভব মানুষের মাঝে আল্লাহর শরিয়ত দ্বারা শাসন-বিচার কার্যকর করার মাধ্যমে। জাফর রা. নাজ্জাশিকে বলেছিলেন :
أَيُّهَا الْمَلِكُ، كُنَّا قَوْمًا أَهْلَ جَاهِلِيَّةٍ نَعْبُدُ الْأَصْنَامَ، وَنَأْكُلُ الْمَيْتَةَ وَنَأْتِي الْفَوَاحِشَ، وَنَقْطَعُ الْأَرْحَامَ، وَنُسِيءُ الْجِوَارَ يَأْكُلُ الْقَوِيُّ مِنَّا الضَّعِيفَ، فَكُنَّا عَلَى ذَلِكَ حَتَّى بَعَثَ اللَّهُ إِلَيْنَا رَسُولًا مِنَّا نَعْرِفُ نَسَبَهُ، وَصِدْقَهُ، وَأَمَانَتَهُ، وَعَفَافَهُ،
‘হে বাদশাহ, আমরা ছিলাম অজ্ঞ জাতি। মূর্তিপূজা করতাম। মৃত জন্তুর গোশত খেতাম। বিভিন্ন অশ্লীল কাজ করতাম। আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করতাম। প্রতিবেশীদের ভুলে থাকতাম। আমাদের শক্তিশালীরা দুর্বলদের ওপর শোষণ চালাত। আমরা এমনই ছিলাম, যতদিন না আল্লাহ আমাদের কাছে আমাদের মধ্য থেকে তাঁর একজন রাসুল পাঠালেন। আমরা তাঁর বংশ, সত্যবাদিতা, আমানতদারিতা ও চারিত্রিক নিষ্কলুষতা সম্পর্কে অবগত আছি।’(মুসনাদু আহমাদ : ১৭৪০ ) অর্থাৎ ইসলামের আগমনের মাধ্যমেই এ পৃথিবী আলোকিত হয়েছে। বিদূরিত হয়েছে জাহিলিয়াতের সকল অজ্ঞতা-অন্ধকার।

লেখক

প্রকাশনী

বাইন্ডিং

পেপারব্যাক

ভাষা

বাংলা

পৃষ্ঠা

220

রাসুল সা.-এর আগমনের আগে এ ধরা অন্ধকারে ডুবে ছিল। এ কথা সবারই জানা। তখন আরবে বিরাজ করছিল ‘জোর যার মল্লুক তার’ অবস্থা। পুরুষরা যা বলত এবং করত, তা-ই ছিল ন্যায়। নারীদের তখন কোনো অধিকার ছিল না। রাসুল সা.-এর আবির্ভাবের পর পৃথিবীটা যেন নতুন প্রাণ পেল—দীর্ঘ তৃষ্ণার পর লোকেরা তাদের পিপাসা মেটাল।
لَمَّا أطَلَّ مُحَمَّدٌ زَكَتِ الرُّبَا *** واخْضَرَّ فِي الْبُسْتَانِ كُلُّ هَشِيْمِ
‘মুহাম্মাদের আবির্ভাবে স্ফীত হলো যত সতেজ টিলা। বাগানের সব শুকনো ঘাস নিমিষেই হলো সবুজ শ্যামল।’
.
রাসুল সা.-এর আবির্ভাব ছিল তাগুত ও তাগুতের দোসরদের ধ্বংসের ঘোষণা, নতুন ভোরের সূচনা, নবজাগরণের আরম্ভ, পৃথিবীব্যাপী ন্যায় প্রতিষ্ঠার ভূমিকা। যেটা কেবল এক আল্লাহর ইবাদত-বন্দেগি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই সম্ভব। যেটা সম্ভব মানুষের মাঝে আল্লাহর শরিয়ত দ্বারা শাসন-বিচার কার্যকর করার মাধ্যমে। জাফর রা. নাজ্জাশিকে বলেছিলেন :
أَيُّهَا الْمَلِكُ، كُنَّا قَوْمًا أَهْلَ جَاهِلِيَّةٍ نَعْبُدُ الْأَصْنَامَ، وَنَأْكُلُ الْمَيْتَةَ وَنَأْتِي الْفَوَاحِشَ، وَنَقْطَعُ الْأَرْحَامَ، وَنُسِيءُ الْجِوَارَ يَأْكُلُ الْقَوِيُّ مِنَّا الضَّعِيفَ، فَكُنَّا عَلَى ذَلِكَ حَتَّى بَعَثَ اللَّهُ إِلَيْنَا رَسُولًا مِنَّا نَعْرِفُ نَسَبَهُ، وَصِدْقَهُ، وَأَمَانَتَهُ، وَعَفَافَهُ،
‘হে বাদশাহ, আমরা ছিলাম অজ্ঞ জাতি। মূর্তিপূজা করতাম। মৃত জন্তুর গোশত খেতাম। বিভিন্ন অশ্লীল কাজ করতাম। আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করতাম। প্রতিবেশীদের ভুলে থাকতাম। আমাদের শক্তিশালীরা দুর্বলদের ওপর শোষণ চালাত। আমরা এমনই ছিলাম, যতদিন না আল্লাহ আমাদের কাছে আমাদের মধ্য থেকে তাঁর একজন রাসুল পাঠালেন। আমরা তাঁর বংশ, সত্যবাদিতা, আমানতদারিতা ও চারিত্রিক নিষ্কলুষতা সম্পর্কে অবগত আছি।’(মুসনাদু আহমাদ : ১৭৪০ ) অর্থাৎ ইসলামের আগমনের মাধ্যমেই এ পৃথিবী আলোকিত হয়েছে। বিদূরিত হয়েছে জাহিলিয়াতের সকল অজ্ঞতা-অন্ধকার।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “ইমানদীপ্ত আহবান”

১ম ধাপ: পছন্দের বইটিকে CART এ এড করুন। অর্থাৎ 'এখনই কিনুন' বাটনে ক্লিক করুন
২য় ধাপ: এবার আপনার CART পেজ এ যান। (ওয়েবসাইট এর উপরের ডান কোণায় CART মেনুতে যান এবং VIEW CART এ ক্লিক করুন)
৩য় ধাপ: আপনার কার্ট আইটেমগুলো দেখে নিন এবং সবকিছু ঠিক থাকলে Proceed to Checkout এ চলে যান।
৪র্থ ধাপ: আপনার শিপিং ঠিকানা ও বিবরণ দিন এবং পেমেন্ট সম্পন্ন করুন
৫ম ধাপ: এরপর PLACE ORDER এ ক্লিক করুন।

একাধিক বই কিনতে: যতগুলো বই কিনতে চান সবগুলো CART এ এড করুন, তারপর চেকআউট করুন।

আপনি অর্ডার করার পর, আমরা পেমেন্ট চেক করবো এবং আপনার বই/বইগুলো ডেলিভারি দেয়া হবে। যে কোনও প্রকার হেল্প এর জন্য আমাদের ফোন অথবা মেইল করুন।