কেয়ামত

৳ 490 ৳ 245

হয়ত মনে মনে ভাবছেন “একী বলে! কিয়ামত আসতে তো বহু দেরী! কতো কিছু বাকি!”। সত্যি বলতে, আমাদের অজ্ঞতার কারণে আমরা এমনটা ভেবে বসে আছি। অথচ উলামায়ে কেরাম বলে দিয়েছেন যে, কিয়ামতের অধিকাংশ নিদর্শনই প্রকাশ পেয়ে গেছে। কিন্তু আমরা এগুলো সম্বন্ধে বেখবর। আমরা খেলাধুলায় মত্ত কিংবা দুনিয়া পূজায় ব্যস্ত। তবে, সময় এখনো আছে। আমাদের সম্মানিত আলিমদের বইপুস্তক এখনো আমাদের মধ্যে বিদ্যমান, আলহামদুলিল্লাহ! আর ‘কেয়ামত’ সম্পর্কিত পড়াশোনার জন্যে আপনার প্রথম স্টেপ হতে পারে এই বইটি। যেটির নামই হলো- ‘কেয়ামত’।

লেখক

, ,

প্রকাশনী

অনুবাদক

পৃষ্ঠা সংখ্যা

400

ভাষা

পরীক্ষার হলে পরীক্ষার্থীরা কাঁপতে কাঁপতে প্রবেশ করে, চোখেমুখে ফুটে ওঠে নার্ভাসনেসের সুস্পষ্ট চিহ্ন, প্রশ্নপত্রের চিন্তা ভাবনার জগতে প্রবেশাধিকার দেয় না অন্য কোনোকিছুকেই, উত্তরগুলো সঠিকভাবে লিখে দিতে পারলেই মনে হয়- ‘আহ! শান্তি’। কিন্তু দুশ্চিন্তা চলে যায় না। গেঁথে যায় মনে, আঘাত করতে থাকে, ফলাফলের অশুভ ভাবনা ঘুমাতে দেয় না, আবার শুভ আকাঙ্ক্ষা মনকে উতলা করে তোলে- ‘কবে আসবে সেই দিন!’; এ এক বিচিত্র অনুভূতি।

সারাবছর পাঠ্যবইয়ের সংস্পর্শে না আসা ছেলেটাও পরীক্ষার আগের রাতে ‘সিরিয়াস’ হয়ে যায়; এমনটা কেন হয়? কেন ফলাফল প্রকাশের আগের ক’দিন এক ওয়াক্ত সালাতও মিস হয় না? কেন ভালো ফলাফলের ইচ্ছা একজনের পড়াশোনার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়? এসবের পেছনে কাজ করে দু’টি বিষয়- ভয় এবং আশা।

দুঃখের বিষয় হলো, বস্তুগত চাহিদা মেটানোর ক্ষেত্রে এই দু’টি বিষয়কে আমরা কাজে লাগালেও ‘নৈতিক চাহিদা’ বা ‘বাস্তবতার’ মুখোমুখি হতে গেলে, ‘ভয় এবং আশা’কে আমরা অবজ্ঞা করতে শুরু করি। ‘জান্নাতের আশা এবং জাহান্নামের ভয়’ আমাদের মধ্যে অনুপস্থিত বিধায় যেকোনো ধরণের পাপকার্যে জড়িয়ে পড়তে আমাদের বেশি সময় নিতে হয় না। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন মক্কায় প্রথম ইসলামের দাওয়াত দিলেন, তখন আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা ইসলামের বিধিবিধান সমন্বিত আয়াত নাযীল না করে ‘আখিরাত সম্বলিত’ আয়াত নাযীল করেন। কেন? কারণ, একজন মানুষ তখনই নৈতিকতার চরম শীর্ষে উত্তীর্ণ হবে, যখন তার মধ্যে এর জন্য ‘ভয় এবং আশা’ কাজ করবে। ঠিক একজন পরীক্ষার্থীর মতো, সে ভালো ফলাফলের আশায় এবং খারাপ ফলাফলের ভয়ে সর্বদা চিন্তিত থাকে; পড়াশোনায় মনোযোগী হয়। আমাদের জীবনটাও একটি পরীক্ষা। এখানে যার আমল যত ভালো হবে, সে পরকালে তত বেশি পুরষ্কৃত হবে। খারাপ আমলের পরিমাণ বেশি হলে সেই অনুযায়ী শাস্তি পাবে। এই বিষয়গুলো আমরা প্রায় সময়ই শুনি, তবুও আমাদের ভেতরে কোনো নাড়া দেয় না; কেন? কারণ আমাদের ঈমান একেবারে দুর্বল, খুবই দুর্বল। তাই, এই বিষয়গুলো আমাদের অন্তরের অন্তঃস্থলে তাজা করে তুলতে হবে। ‘জান্নাত-জাহান্নাম’ শব্দ দু’টিকে অনুভব করে কাঁপতে হবে, চোখ দিয়ে পানি বের হতে হবে। তাছাড়া, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা বলেন-
“কিয়ামত আসন্ন হয়েছে..”
[সূরা ক্বামার, আয়াত: ১]


হয়ত মনে মনে ভাবছেন “একী বলে! কিয়ামত আসতে তো বহু দেরী! কতো কিছু বাকি!”। সত্যি বলতে, আমাদের অজ্ঞতার কারণে আমরা এমনটা ভেবে বসে আছি। অথচ উলামায়ে কেরাম বলে দিয়েছেন যে, কিয়ামতের অধিকাংশ নিদর্শনই প্রকাশ পেয়ে গেছে। কিন্তু আমরা এগুলো সম্বন্ধে বেখবর। আমরা খেলাধুলায় মত্ত কিংবা দুনিয়া পূজায় ব্যস্ত। তবে, সময় এখনো আছে। আমাদের সম্মানিত আলিমদের বইপুস্তক এখনো আমাদের মধ্যে বিদ্যমান, আলহামদুলিল্লাহ! আর ‘কেয়ামত’ সম্পর্কিত পড়াশোনার জন্যে আপনার প্রথম স্টেপ হতে পারে এই বইটি। যেটির নামই হলো- ‘কেয়ামত’।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “কেয়ামত”

১ম ধাপ: পছন্দের বইটিকে CART এ এড করুন। অর্থাৎ 'এখনই কিনুন' বাটনে ক্লিক করুন
২য় ধাপ: এবার আপনার CART পেজ এ যান। (ওয়েবসাইট এর উপরের ডান কোণায় CART মেনুতে যান এবং VIEW CART এ ক্লিক করুন)
৩য় ধাপ: আপনার কার্ট আইটেমগুলো দেখে নিন এবং সবকিছু ঠিক থাকলে Proceed to Checkout এ চলে যান।
৪র্থ ধাপ: আপনার শিপিং ঠিকানা ও বিবরণ দিন এবং পেমেন্ট সম্পন্ন করুন
৫ম ধাপ: এরপর PLACE ORDER এ ক্লিক করুন।

একাধিক বই কিনতে: যতগুলো বই কিনতে চান সবগুলো CART এ এড করুন, তারপর চেকআউট করুন।

আপনি অর্ডার করার পর, আমরা পেমেন্ট চেক করবো এবং আপনার বই/বইগুলো ডেলিভারি দেয়া হবে। যে কোনও প্রকার হেল্প এর জন্য আমাদের ফোন অথবা মেইল করুন।